ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন

নিউজ ডেস্ক: অবশেষে শেয়ারবাজারে চেক দিয়ে শেয়ার ক্রয়ের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। আজ মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় এই এই সুযোগ দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের শেয়ারবাজারের উন্নয়নে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ব্রোকারেজ হাউজকে সেদিন বা পরের কর্মদিবসে চেক ব্যাংকে জমা দেয়াসহ চারটি শর্ত আরোপ করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এখন থেকে ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংক গুলো বিনিয়োগকারীদের থেকে চেক, পে অর্ডার ডিমান্ড ড্রাফট বাংলাদেশ ব্যাংক অনুমোদিত অন্য কোনো মাধ্যমে টাকা পেলে সেই টাকা নগদ করার আগে লেনদেন করতে পারবে।

ব্রোকারেজ হাউজের জন্য চার শর্ত। এবং বিএসইসির নির্দেশনায় চার শর্ত ও দুটি করণীয়ের কথা বলা আছে।

ব্রোকারেজ হাউজের প্রথমশর্ত. বিনিয়োগকারীর জমা দেয়া চেক যদি ব্রোকারেজ হাউজ বা মার্চেন্ট ব্যাংক সেদিন বা পরের কর্মদিবসে ব্যাংকে জমা না দেয়, তাহলে পরের এক বছরের জন্য আইপিওতে যোগ্য বিনিয়োগকারীর সুযোগ সুবিধা হারাবে তারা।

দ্বিতীয়শর্ত. সেই চেক যদি বাউন্স করে, অর্থাৎ ব্যাংক হিসাবে যদি সমপরিমাণ টাকা পাওয়া না যায়, তখন ব্রোকারেজ বা মার্চেন্ট ব্যাংকের হিসাব থেকে সে টাকা দিতে হবে। সেটিও যদি না হয়, তাহলে সেই প্রতিষ্ঠান আইপিওতে এক বছরের জন্য সব সুবিধা হারাবে।

তৃতীয়শর্ত. যে গ্রাহকের চেক বাউন্স করবে, তিনি পরের এক বছর পুঁজিবাজারে আর লেনদেন করতে পারবেন না।

চতুর্থশর্ত. প্রতিটি স্টক ব্রোকারকে ডিসঅনার চেকের তালিকা মাস শেষ হওয়ার ১০ দিনের মধ্যে বিএসইসিকে পাঠাতে হবে।

ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের করণীয় হিসেবে যেগুলো উল্লেখ করা হয়েছে।

সেগুলো হলো: প্রথমত, গ্রাহককে অনলাইনে টানা স্থানান্তরে উৎসাহ দেবে প্রতিষ্ঠানগুলো এবং দ্বিতীয়ত, এই শর্ত ও করণীয়গুলো বাস্তবায়ন করতে ঢাকা ও চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জ এবং মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজগুলো দ্রুত ব্যবস্থা নেবে