লাইলাতুল কদর

লাইলাতুল কদর একটি সম্মানিত ও মহিমান্বিত রাত। লাইলাতুল কদর সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয় আমি কুরআন নাজিল করেছি লাইলাতুল কদরে।’ ‘লাইলাতুল কদর হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।’ ‘এ রাতে ফেরেশতারা ও জিবরাইল তাদের প্রভুর অনুমতিক্রমে সব সিদ্ধান্ত নিয়ে অবতরণ করে। শান্তিময় এ রাত ফজরের সূচনা পর্যন্ত’। (সুরা কদর)।

নবিজি (সা.) বলেন, ‘তোমরা মাহে রমজানের শেষ দশকের বিজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করো।’ (বুখারি)। এ রাত হলো জাহান্নাম থেকে মুক্তি পাওয়ার রাত। হজরত আয়েশা (রা.) একবার রাসুল (সা.)কে জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! আমি যদি লাইলাতুল কদর সম্পর্কে জানতে পারি, তাহলে আমি ওই রাতে কী দোয়া করব? তখন নবিজি (সা.) বললেন, তুমি এ দোয়াটি করবে-‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফউন; তুহিব্বুল আফওয়া, ফা’ফু আন্নি’ অর্থাৎ হে আল্লাহ! তুমি তো ক্ষমাশীল! ক্ষমাকে তুমি ভালোবাসো। অতএব, আমাকে তুমি ক্ষমা করো।

এ রাতে আমরা নফল ইবাদত করব। ধীরগতিতে নফল নামাজ পড়ব। স্থিরতার সঙ্গে রুকু-সিজদা করব। বারবার মহান আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইব। এ রাতে যে ক্ষমা পেল না, তার চাওয়া-পাওয়া সবই ব্যর্থ। তার জীবন পুরোটাই অনর্থ। এ রাতে একনিষ্ঠ চিত্তে মহান আল্লাহর কাছে তওবা করব। আল্লাহর কাছে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হব, জীবনে সব পাপ ছেড়ে দেওয়ার। অন্যায়ের জন্য মহান আল্লাহর কাছে অনুতপ্ত হব। কোনো বান্দার অধিকার নষ্ট করলে, তার অধিকার আদায়ের প্রতিশ্রুতি দেব। মহান আল্লাহর কাছে নিজের দুঃখ-কষ্টগুলো তুলে ধরব। নিজের ভুলগুলো স্বীকার করে তার কাছে ক্ষমা চাইব।

হে আল্লাহ! আমরা গুনাহগার, আপনি পরওয়ারদেগার! আপনি আপনার বান্দাদের ক্ষমা করতে ভালোবাসেন, অতএব আমাদের ক্ষমা করেন। আমিন।

লেখক : ইমাম, আমির উদ্দিন দারোগা ঘাট মসজিদ, বাবুবাজার, ঢাকা