সরকার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কাছে ৩৭১টি আইডির তথ্য চেয়েছে বাংলাদেশ সরকার। এর জন্য সরকারকে ২৪১টি রিকোয়েস্ট (অনুরোধ) পাঠাতে হয়। এর মধ্যে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অনুরোধ ১৪২টি (৫৮.৯ শতাংশ) এবং ৯৯টি (৪১.১ শতাংশ) জরুরি অনুরোধ।

বাংলাদেশ সরকারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৪৪ শতাংশ অনুরোধের বিপরীতে কিছু কিছু তথ্য দিয়েছে ফেসবুক যা জরুরির বেলায় ২৫ শতাংশ আর আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অনুরোধের ৫৭ শতাংশ।

গত ১৯ নভেম্বর রাতে প্রকাশিত ফেসবুকের ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে। প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি থেকে জুন) সরকার ফেসবুকের কাছে এই অনুরোধ পাঠায়।

প্রতিবেদনে ফেসবুক উল্লেখ করেছে, সরকারের কাছ থেকে অনুরোধ পাওয়ার পরে ফেসবুক তাদের আইনি কাঠামো ও টার্মস অব সার্ভিসে মাধ্যমে যথাযথভাবে যাচাই করে তবেই তথ্য দেবে। সরকারের প্রতিটি অনুরোধ যত্ন ও সতর্কতার সঙ্গে রিভিউ করা হয়েছে।

আরো পড়ুন- নারীদের জন্য সাইবার ইউনিট, পরিচালনায় নারী পুলিশ

জানা যায়, ২০১৬ সাল থেকে বাংলাদেশ সরকার ফেসবুকের কাছে তথ্য চাওয়া শুরু করে। অন্যদিকে ৬ মাস পর পর ফেসবুক ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ফেসবুক প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও বিভিন্ন দেশের সরকারের চাওয়া কোনও আইডির তথ্য প্রকাশ (প্রতিবেদনে) করে না।