হাতের কব্জি কেটে বৃদ্ধকে ফেলে দিল দুর্বৃত্তরা

কুপিয়ে হত্যা

সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাগলা মিরেরচক গ্রামে আব্দুল বশির (৫০) নামের এক বৃদ্ধের হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করেছে দুর্বৃত্তরা। কব্জি কাটার পর তাকে হাওরে ফেলে দেয় তারা। পরে তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানা গেছে।

জানা যায়, বৃদ্ধ আব্দুল বশির আহমদ জুমার নামাজ পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বাগলা মিরেরচক জামে মসজিদের দিকে রওনা দেন। এ সময় মসজিদে যাওয়ার পথে আগে থেকে ওতপেতে থাকা স্থানীয় ৪-৫ জন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার বাম হাতের কব্জি কেটে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে তারা। আর ডানহাত অস্ত্রের কোপে মাংসের সাথে ঝুলে যায়।

এছাড়াও পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে স্থানীয় একটি বিলে তাকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। পরে তার আর্ত-চিৎকারে এলাকাবাসী মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুনূর রশিদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় এখনও কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে গ্রহণ করা হবে। তবে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

আহত আব্দুল বশিরের পুত্র আলী হোসেন জানান, বাগলা মিরেরচক গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের পুত্র আব্দুর রহিমের (৪৫) বিভিন্ন অপকর্মের প্রতিবাদ করায় সে তার ছেলে লিটন আহমদসহ (২৪) একই এলাকার কয়েকজন দুর্বৃত্ত নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার পিতার ওপর হামলা করে।

আরো পড়ুন- সিলেট এমসি কলেজ উত্তাল

আমার বাবার একটি হাত বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে এবং আরেকটি হাত মাংসের সাথে ঝুলে রয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ জানান, এলাকার দুটি পক্ষের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। হামলার বিষয়টি আমি শুনেছি। এটা খুবই দুঃখজনক।

 

Leave a Reply