স্বাক্ষর জালিয়াতি করে কোটি টাকা হাতিয়েছে পিয়ন

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের পিয়ন মো. জুয়েল শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ধরা পড়েছে। এমন ঘটনার অভিযোগ পাওয়ার পর তাকে সাময়ীক বরখাস্ত করা হয়েছে।

ঘটনাটি তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুধু স্বাক্ষর জালিয়াতিই নয়, বদলি, ভর্তি, এমপিওসহ নানা অপকর্মের মাধ্যমে কোটি টাকা কামিয়েছে এই জুয়েল। গত কয়েকবছর ধরে মহাপরিচালকের পিয়ন হিসেবে কাজ করছে জুয়েল। এই সুযোগে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারভুক্ত সরকারি কলেজ ও স্কুল শিক্ষকদের অনেককেই নানাভাবে সুবিধা দেওয়ার নাম করে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা।

উপমন্ত্রীর স্বাক্ষর জালিয়াতি করে সরকারি হাইস্কুলের শিক্ষক বদলির ঘটনায় জুয়েলসহ শিক্ষা ভবনের সংশ্লিষ্টদের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন উপমন্ত্রী। জানা গেছে জুয়েলের যাবতীয় জালিয়াতির তদন্ত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভিস্টেগেশনকে (পিবিআই) দেয়া হবে।

যদিও তার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি বলে মাউশি থেকে জানা গেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, জুয়েলের বিরুদ্ধে সরকারি হাইস্কুলের শিক্ষক ও কর্মচারী বদলি, সদ্য সরকারিকৃত স্কুল শিক্ষকদের সনদ ও তথ্য বদলে দেওয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়োগ বাণিজ্যে অপর কর্মচারী সৈয়দ লিয়াকতের সঙ্গে সিন্ডিকেট করে বাণিজ্য করে আসছে জুয়েল। জালিয়াতি করে এমপিও পাইয়ে দেওয়া, টাকার বিনিময়ে ফাইল গায়েব করাসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন- রাবি উপাচার্যের অনিয়মের পাহাড়

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মহাপরিচালক ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে অভিযোগের পর নিয়ম অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে প্রমাণ হলে আরও ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।

 

Leave a Reply