তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনের সিদ্ধান্ত আমরা নিয়েছি, তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে সব রিপোর্ট এখনও পাইনি; পেলেই কিছু অনলাইন নিবন্ধিত হবে।’

বুধবার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ২০২০ খ্রিস্টাব্দের প্রথম দিনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় নতুন তথ্যসচিব কামরুন নাহার ও প্রধান তথ্য কর্মকর্তা সুরথ কুমার সরকার উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী সবাইকে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, আজ বছরের প্রথম দিনে শুভেচ্ছা বিনিময় করার জন্যই মূলত আপনাদের আহ্বান জানিয়েছিলাম। একই সঙ্গে আমাদের মন্ত্রণালয়ে নতুন সচিব যোগদান করেছেন। কামরুন নাহার তথ্য মন্ত্রণালয়ের ইতিহাসে প্রথম একজন নারী সচিব। তিনি তথ্য ক্যাডারের অফিসার। সুতরাং এই মন্ত্রণালয়ের বিষয়াদি নিয়ে তার আগে থেকেই অভিজ্ঞতা আছে। সেহেতু মন্ত্রণালয়ের কাজ করতে তা অত্যন্ত সহায়ক হবে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক বছর সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘গত প্রায় একটি বছর আমি এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করছি। অনেক কাজ আমরা সফলভাবে করতে সক্ষম হয়েছি। অনেকগুলো কাজ আমরা হাতেও নিয়েছি। কয়েক যুগে হয়নি বা একযুগেও হয়নি এমন কাজ, যেমন ভারতে বাংলাদেশ টেলিভিশন দেখানোর প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল কয়েক যুগ আগে থেকে, কিন্তু সেটি সম্ভব হয়নি। গত বছর ২ সেপ্টেম্বর থেকে দুরদর্শনের ফ্রি ডিশের মাধ্যমে সমগ্র ভারতে অফিসিয়ালি বাংলাদেশ টেলিভিশন প্রদর্শিত হচ্ছে। গত বছরে কয়েক মাসের মধ্যেই আমরা সেটা করতে সক্ষম হয়েছি।’

ড. হাছান বলেন, ‘এক যুগেরও বেশি সময় ধরে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর ক্রমনির্ধারণের জন্য বারংবার তাগাদা দেয়া হয়েছিল কিন্তু তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি, এখন হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘বিদেশি টেলিভিশনে অবৈধ দেশি বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হচ্ছিল, সেটি আমরা বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছি, অনেকগুলো টেলিভিশনে বিদেশি সিরিয়াল অনুমতি ছাড়া প্রদর্শিত হচ্ছিল, যেটি আমরা নিয়ম-নীতির মধ্যে এনেছি; একটি কমিটির অনুমোদন নিয়ে সেগুলো প্রদর্শিত হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে বিদেশি অবৈধ ডিটিএইচ সংযোগ অনেক জায়গায় চালু ছিল, আমরা ঘোষণা করেছিলাম প্রাথমিকভাবে ডিসেম্বরের ১৫ তারিখের মধ্যে এগুলো সরিয়ে নিতে হবে। পরে সময় বৃদ্ধি করেছিলাম। আজ থেকে অবৈধ ডিশ সংযোগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। জেলার ডিসি ও বিভাগীয় কমিশনারদের কাছে এ ব্যাপারে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। ব্যবহারকারী ও সংযোগ প্রদানকারী উভয়েই দোষী সাবস্ত্য হবে আইন অনুযায়ী।’