সাত রাজ্যের ৪টিতে এগিয়ে রিপাবলিক

রিপাবলিক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন চলছে। এখন পর্যন্ত ফলাফলে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেন থেকে রিপাবলিক প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প পিছিয়ে রয়েছেন । পঞ্চাশটি অঙ্গরাজ্যের বেশিরভাগ ফলাফলে দেখা গেছে ৪৫১টি ইলেক্টোরালের মধ্যে ২৩৮টি গেছে বাইডেনের ঘরে, ২১৩টি পেয়েছেন ট্রাম্প।

তবে চার বছরের জন্য হোয়াইট হাউসে বসবাস করতে যাচ্ছেন তা এখনো নিশ্চিত নয় । কারণ পেনসিলভানিয়া, জর্জিয়া, মিশিগান, নর্থ ক্যারোলিনা, উইসকনসিন, নেভাদা, আলাস্কার ফলাফল এখনো ঘোষণা হয়নি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, এ সাত রাজ্যের চারটিতে এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বাকি দু’টির একটি নেভাদায় বাইডেন এগিয়ে আছেন ৭৬৪৭ ভোটে। তবে এ রাজ্যের ৩৩ শতাংশ ভোট গণনা বাকি। অপরদিকে ২০টি ইলেক্টোরাল কলেজ আছে যে পেনসিলভানিয়া রাজ্যে সেখানে ট্রাম্প এগিয়ে আছেন ৬ লাখ ৭৫ হাজার ১২ ভোটে। এ রাজ্যে এখনো ৩৬ শতাংশ ভোট গণনা বাকি।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে মোট ৫৩৮ ইলেক্টোরাল ভোটের মধ্যে অন্তত ২৭০টি নিশ্চিত করতে হবে।

এ নির্বাচনে ১০ কোটির বেশি আগাম ভোট পড়েছে। এক শতকের বেশি সময়ের মধ্যে এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সময়ের ভিন্নতার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ অঙ্গরাজ্যের একেক এলাকায় ভোটগ্রহণ শেষ হবে একেক সময়ে। স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় ইন্ডিয়ানা (১১ ইলেকটোরাল ভোট) ও কেন্টাকি (৮) অঙ্গরাজ্যের অনেক কেন্দ্রে ভোট শেষ হয়। এরপর জর্জিয়া (১৬), সাউথ ক্যারোলাইনা (৯), ভারমন্ট (৩) ও ভার্জিনিয়ায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল সাধারণত ভোটের রাতেই হয়ে থাকে। ২০১৬ সালে নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় রাত ৩টার দিকে বিজয় মঞ্চে এসে উল্লসিত সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্য দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আরও পড়ুন :- ট্রাম্প হেরে গেলে কি হবে যুক্তরাষ্ট্র ?

তবে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে এবারের নির্বাচন পরিস্থিতি অন্যান্যবারের চেয়ে ভিন্ন। কর্মকর্তারা এরইমধ্যে শঙ্কা জানিয়ে বলেছেন, ভোটের ফল পেতে কয়েক দিন এমনকি কয়েক সপ্তাহ দেরি হতে পারে। এর কারণ হিসেবে পোস্টার ব্যালট অনেক বেশি হওয়ার কথা বলেছেন তারা।

এ বছর দশ কোটির বেশি আমেরিকান ভোটার ডাকযোগে আগাম ভোট দিয়েছেন, যা দেশটির ইতিহাসে নতুন রেকর্ড। কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ভিড় এড়াতেই মূলত ডাকযোগে ভোটের সংখ্যা বেড়েছে।

ভোটারের স্বাক্ষর ও ঠিকানার মতো বিষয়গুলো মিলিয়ে দেখার মতো যাচাই-বাছাইয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হওয়ায় পোস্টাল ভোট গণনায় সময় বেশি লাগে।

1 মন্তব্য

Leave a Reply