গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ। এ ঘটনায় আনন্দ মিছিল করছে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় অন‌্যান্য নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সন্ধ‌্যা সাড়ে ৭টার দিকে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আফজাল হোসেন কল্লোলের নেতৃত্বে মিছিল শুরু হয়।

মিছিলটি গাজীপুরের প্রাণকেন্দ্র চান্দনা চৌরাস্তা থেকে শুরু হয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতাকর্মীদের মিছিলে যোগ দিতে দেখা যায়।

মিছিলে গাজীপুর সিটি করপোরেশন ১৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রহিজউদ্দিন, ১৭নং ওয়ার্ডের ইয়াজ উদ্দিন, ১৮নং ওয়ার্ডের মফিজুল ইসলাম, গাজীপুর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক সদস্য লুৎফর রহমানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সহস্রাধীক নেতাকর্মীর উপস্থিতি দেখা গেছে। তারা মেয়রকে ‘দুর্নীতিবাজ’, ‘দালাল’ প্রভৃতি আখ‌্যা দিয়ে স্লোগান দিচ্ছিলেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি কল্লোল বলেন, ‘দ্রুত মেয়রের সম্পদের হিসাব তলব করে তাকে গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, গত ২২ সেপ্টেম্বর ৪ মিনিটের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ‌্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তা ভাইরাল হয়। এতে দেখা যায়, ঘরোয়া আলোচনায় মেয়র তার ঘনিষ্ঠ কারও সঙ্গে কথা বলছেন। সেখানে তার কথায় স্পর্শকাতর অনেক বিষয় নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য উঠে আসে। এ ঘটনায় গাজীপুর আওয়ামী লীগের একটি অংশ মেয়রকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি তোলে।

পরে ২২ সেপ্টেম্বর বিকেল থেকে টানা কয়েকদিন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন গাজীপুর আওয়ামী লীগের একটি অংশ। এতে নেতৃত্ব দেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ, প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মামুন মন্ডলসহ বেশ কিছু নেতাকর্মী।

এরপর ২৪ সেপ্টেম্বর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলেন। তিনি জানান, তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করা হচ্ছে। ভিডিওটি ভিত্তিহীন। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কুৎসা রটনাকারীদের মোকাবেলা করবেন। তারা মিথ্যা আইডি দিয়ে ফেসবুক খুলে তাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন।

এরপর থেকে গাজীপুরের রাজনীতি উত্তপ্ত হতে শুরু করে। মেয়রের পক্ষে-বিপক্ষে বিভক্ত হয়ে যায় গাজীপুর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সন্ধ‌্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক বসে। বৈঠক শেষে গাজীপুর সিটি মেয়রকে দল থেকে আজীবন বহিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়।