ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফিরেছেন ৮৯৭৪ প্রবাসী, কোয়ারেন্টাইনে মাত্র ১৪ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া :প্রতীকী ছবি

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পহেলা মার্চ থেকে শুরু করে ১৭ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নিজ এলাকায় ফিরেছেন ৮হাজার ৯৭৪জন প্রবাসী দেশে ফিরে আসলেও হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন মাত্র ১৪ জন।

তাদের অনেকে করোনা আক্রান্ত বিভিন্ন দেশ থেকেও এসেছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপারের কার্যালয়কে এই তথ্য জানিয়ে বুধবার মেইল পাঠানো হয়েছে।

তাদের অবস্থা পর্যবেক্ষন করে নিয়মিত প্রতিবেদন পাঠানোর নির্দেশও দেয়া হয়। ১৪ প্রবাসীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার কথা স্বীকার করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিভিল সার্জন মো. শাহ আলম। তাদের মধ্যে ১২ জনই ইটালি থেকে এসেছেন। আর দু-জনের একজন সৌদি ও ক্রোয়োশিয়া থেকে আগত।

এদিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে না থাকায় বাঞ্ছারামপুরে ওমান ফেরত এক প্রবাসীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাছির উদ্দিন সারোয়ার জানান, মনির হোসেন ৮ দিন আগে দেশে আসেন। কিন্তু হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে তিনি অবাধে বিভিন্ন বাজারে ও অন্যান্য এলাকা ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন। সরকারী নির্দেশনা না মানায় এবং এই ব্যাপারে সবাই যাতে সচেতন হয় সেই কারনে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে পহেলা মার্চ থেকে বিভিন্ন সময় বিমানযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাসিন্দা ৮৯৭৮জন প্রবাসী বাংলাদেশে এসেছেন। ইতোমধ্যে তারা নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তাদেরকে পাঠানো এক মেইলে জানানো হয়েছে।

তারা অনেকে করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে ফিরেছেন উল্লেখ করে মন্ত্রনালয় থেকে পাঠানো ওই মেইলে আরও বলা হয়, আগমনের তারিখ থেকে ১৪ দিন তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। এছাড়াও যে সমস্ত যাত্রীরা বাংলাদেশে বিভিন্ন দেশ থেকে আসবে তাদের ক্ষেত্রেও একই ধরনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

এই বিষয়ে জেলা পুলিশকে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন কট্রোল অফিসের সঙ্গে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ করে হোম কোয়ারেন্টাইনের বিষয়ে পর্যবেক্ষন ও তাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত তথ্য প্রেরণ করতে বলা হয়।

পুলিশ সুপার কার্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান জেলা প্রশাসক এবং সিভিল সার্জনের কাছে তারা এই চিঠি পাঠিয়েছেন এবং জেলার টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে এই ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা প্রবাসীদের অবস্থা পর্যবেক্ষন করবেন।

Leave a Reply