বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের মুনাফা

মাজহারুল আলম: বেক্সিমকোর সম্ভাব্য ব্যয়ের হিসাব বলছে, সুকুক বন্ডটির ভিত্তি মুনাফা হবে কমপক্ষে ৯ শতাংশ। বেক্সিমকোর সুকুকটি অংশগ্রহণমূলক তাই বেক্সিমকো লিমিটেডের ঘোষিত লভ্যাংশের সঙ্গে সুকুকের মুনাফার যে তফাত থাকবে, সেখানে ১০ শতাংশ অতিরিক্ত মুনাফা হিসেবে যোগ হবে।

ডিএসই সূত্র মতে, সুকুক বন্ডের মাধ্যমে বেক্সিমকো লিমিটেডের ৩ হাজার কোটি টাকা উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল, গেলো ২১ ডিসেম্বর বেক্সিমকো লিমিটেড সুকুক বন্ডের মাধ্যমে ৩ হাজার কোটি টাকা উত্তোলন করেছে। এতে সুকুক বন্ডের মাধ্যমে কোম্পানির এ কার্যক্রমের সমাপ্তি ঘটে।

বেক্সিমকো লিমিটেড ২০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করলে সুকুকের মুনাফার সঙ্গে তফাত হয় ১১ শতাংশ। এর ১০ শতাংশ হলো ১ দশমিক ১০ শতাংশ। তাহলে সুকুকধারীরা পাবেন ১০ দশমিক শতাংশ মুনাফা।

অনুরুপভাবে দ্বিতীয় বছরে ১০ দশমিক ৬০ এবং তৃতীয় বছরে ১১ দশমিক ১০ শতাংশ মুনাফা সম্ভাব্য ব্যয়ের হিসাব করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে সুকুকের যেই অংশ বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারে রূপান্তরিত হবে, সেটুকুর ক্যাপিটাল গেইন যোগ করলে মুনাফার হার আরও বৃদ্ধি পাবে।

কোম্পানির কর্মকর্তারা মনে করছেন, বাজারে মূল্যের চেয়ে ২৫ শতাংশ কমে সুকুকধারীরা শেয়ার পাওয়ায় প্রতি বছর এ ক্ষেত্রে ইল্ড দাঁড়াবে ৬ দশমিক ৬৭ শতাংশের মতো। অন্যদিকে ফেয়ার ভেল্যু গেইন হবে ৪ শতাংশ।

সব মিলিয়ে প্রথম বছরেই একজন বিনিয়োগকারী ২০ দশমিক ৭৭ শতাংশের মতো মুনাফা গেইন করতে পারবে। দ্বিতীয় বছর থেকে রূপান্তরিত সাধারণ শেয়ারের লভ্যাংশ যোগ হওয়ায় এর পরিমাণ হতে পারে ২৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। তৃতীয় বছরে  তা দাঁড়াবে ২৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ।