ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ বাংলা ভাষা শিখছেন! তাও আবার নিছক শখে নয়, রীতিমতো শিক্ষক রেখে! প্রতিদিন তাকে বাংলা কাগজ হিন্দিতে বা ইংরেজিতে তরজমা করে শোনানো হয়। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা এ ঘটনাকে দেখছেন আগামী বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ জয়ের নতুন কৌশল হিসেবে। ২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন। একের পরে এক রাজ্য হারিয়ে কোণঠাসা বিজেপির চোখ তাই এখন মমতার পশ্চিমবঙ্গের দিকে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিগত বছরে বিধানসভা নির্বাচনে অমিত শাহর কৌশল সব জায়গায় কাজ করেনি। তাই স্বাভাবিক ভাবেই এবার নতুন কৌশল হাতে নিয়েছে বিজেপি। মনে করা হচ্ছে, বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অমিত শাহ তার বক্তব্য রাখতে চান বাংলা ভাষাতেই। আর সেই জন্যেই তিনি বেশ গুরুত্ব দিয়েই বাংলা শিখছেন।

এর আগে একাধিক বার অভিযোগ উঠেছে, বিজেপি তথা অমিত শাহ পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি থেকে বহু দূরে অবস্থান করে। বহিরাগত বলেও একাধিক বার আক্রমণ করা হয়েছে অমিত শাহকে। সেই আক্রমণের জবাব এবার বাংলা ভাষাতেই দেবেন বলে ঠিক করেছেন অমিত শাহ।

বিজেপি সূত্র বলছে, দেশের অন্য রাজ্যের সঙ্গে বাংলার তফাতটা হয়তো এবার বুঝেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বুঝেছেন, বাংলা জয় করতে হলে আগে বাঙালির মন জয় করতে হবে।

এ ব্যাপারে বিজেপির অন্দরমহল বলছে, অমিত শাহ বাংলা এবং তামিল ছাড়াও আরও চারটি প্রদেশের ভাষা শিখছেন। বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ মজার স্বরে বলেন, ‘অমিত নামটাই তো বাংলা। তার বাংলা শেখার দরকার নেই। কারণ বাংলার লোক হিন্দি ভালই বোঝেন। বরং এ রাজ্য থেকে যেসব বাঙালি সাংসদ হয়েছেন, তাদের হিন্দি শেখা দরকার।’