প্যারিসের লুভর জাদুঘরে রেকর্ডসংখ্যক ১ কোটি দর্শনার্থী

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অবস্থিত লুভর মিউজিয়াম ২০১৮ সালে রেকর্ডসংখ্যক ১ কোটি ২ লাখ দর্শনার্থী ঘুরে দেখেছে। এরমধ্যে বিদেশি পর্যটকদের উপস্থিতি ছিল প্রায় ৭৫ শতাংশ। ফলে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় শিল্পকলা জাদুঘরের খেতাব এখন এর দখলে।

লুভরে লিওনার্দো দা ভিঞ্চির মোনালিসাসহ অনেক বিখ্যাত শিল্পকর্ম আছে। ১৯৮৯ সালে উন্মোচিত কাচের পিরামিড দিয়ে দর্শনার্থীদের এই জাদুঘরে ঢুকতে হয়।

ফরাসি সংবাদ সংস্থা এএফপিকে লুভর পরিচালক জ্যঁ-লুক মার্টিনেজ জানিয়েছেন, জাদুঘরটিতে দর্শনার্থীদের জন্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিতে প্রায় ৬ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার খরচ করা হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে নতুন টিকিট কাউন্টার, নতুন লাগেজ স্টোররুম ও দলীয় ভ্রমণপ্রেমীদের জন্য নতুন সুবিধা।

গত বছরের জুনে মার্কিন গায়িকা বিয়ন্সে ও র‌্যাপার জে-জি প্রকাশ করেন তাদের নতুন মিউজিক ভিডিও ‘অ্যাপশিট’। এর একটি দৃশ্যে দেখা যায়, লুভরের শিল্পকর্মগুলোর সামনে দাঁড়িয়ে আছেন এই তারকা দম্পতি। ভিডিওটি সেখানে যেতে অনেকের মধ্যে কৌতূহল তৈরি করেছে বলে মনে করা হচ্ছে।
জ্বালানির দাম বৃদ্ধিসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক কারণে সরকারবিরোধীদের বিক্ষোভ চলতে থাকায় গত ৮ ডিসেম্বর একদিনের জন্য বন্ধ ছিল লুভর। ওইদিন চালু থাকলে ১ কোটি ২ লাখ থেকে সংখ্যাটা নিঃসন্দেহে আরও বাড়তো।

২০১৫ সালে সন্ত্রাসী হামলার পর প্যারিসের পর্যটনে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছিল। ওই ঘটনার পর ভ্রমণপ্রেমীদের সংখ্যা ৩০ শতাংশ কমে যায়। তবে লুভর পরিচালক জ্যঁ-লুক মার্টিনেজ বলেন, ‘২০১৭ সালে ৮১ লাখ মানুষ আমাদের জাদুঘর ঘুরেছে। আর এবার রেকর্ডসংখ্যক দর্শনার্থী জানিয়ে দিচ্ছে পর্যটনে আমরা প্রতিকূল পরিস্থিতি থেকে উতরে উঠতে পেরেছি।’


বিশ্বের কোন জাদুঘরগুলোতে মানুষ সবচেয়ে বেশি যায়, ২০১৭ সালে ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য আর্ট নিউজপেপারের এক জরিপে সেই তথ্য উঠে আসে। এতে ৮১ লাখ দর্শনার্থীর সুবাদে শীর্ষে ছিল লুভর। তালিকায় দুই থেকে পাঁচ নম্বরে স্থান পায় যথাক্রমে বেইজিংয়ের ন্যাশনাল মিউজিয়াম অব চায়না (৮০ লাখ), মেট্রোপলিটন মিউজিয়াম অব আর্ট ইন নিউ ইয়র্ক (৬৭ লাখ), ভ্যাটিক্যান মিউজিয়ামস (৬৪ লাখ) ও লন্ডনের ব্রিটিশ মিউজিয়াম (৫৯ লাখ)।

সূত্র: বিবিসি

Leave a Reply