সাত কলেজ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের স্নাতক ১ম বর্ষের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হওয়ার দেড়ঘণ্টা পর স্থগিত করা হয়েছে। এই দেড়ঘণ্টা শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার হলে বসিয়ে রাখা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার (২৭ আগস্ট) সাত কলেজের কয়েকটি কেন্দ্রে এমন ঘটনা ঘটেছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, আগের রুটিন অনুযায়ী আজ সাত কলেজের স্নাতক ১ম বর্ষের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ‘রাজনৈতিক তত্ত্ব পরিচিতি’ (পত্র কোড ১০৭) বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। সে অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা প্রস্তুতি নিয়ে স্ব স্ব পরীক্ষাকেন্দ্রে গেলেও প্রশ্ন পাওয়ার পর দেখা দেয় বিপত্তি।

রুটিনে দেওয়া বিষয় ও বিষয় কোডের সঙ্গে হাতে পাওয়া প্রশ্নের বিষয় এবং বিষয় কোডের মিল থাকলেও ভেতরের প্রশ্নের সঙ্গে এ বিষয়ের কোনো সম্পর্ক নেই। এসময় শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে কর্তব্যরত শিক্ষককে জানালে তারা প্রশ্ন নিয়ে নেন। এরপর শিক্ষার্থীদের হলে দেড় ঘণ্টা বসিয়ে রেখে পরীক্ষা স্থগিত ঘোষণা করা হয়। চূড়ান্ত পরীক্ষায় প্রশাসনের দায়িত্বহীন এমন ঘটনায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

ঢাকা কলেজের স্নাতক ১ম বর্ষের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তাহসান আহমেদ বলেন, ঢাকা কলেজের পরীক্ষা কেন্দ্র ছিল ইডেন মহিলা কলেজে। দুপুর ১২টায় আমাদের পরীক্ষা শুরু হয়। এরপর প্রশ্ন হাতে পেয়ে দেখি সাবজেক্ট কোড মিল থাকলেও প্রশ্নের সঙ্গে আমাদের সাবজেক্টের প্রশ্নের কোনো মিল নেই।

পরে দায়িত্বরত শিক্ষককে জানানো হলে তিনি আমাদের কাছ থেকে প্রশ্ন নিয়ে নেন এবং আমাদের সবাইকে বসে থাকতে বলেন। এরপর প্রায় দেড়ঘণ্টা পর আমাদের জানানো হয় আজকের পরীক্ষা স্থগিত। এ পরীক্ষার নতুন তারিখ পরে জানানো হবে। এমন ঘটনায় আমরা বিস্মিত।

সরকারি তিতুমীর কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী হাফিজুল বলেন, আমাদের পরীক্ষা কেন্দ্র ছিল সরকারি বাঙলা কলেজে। আমরা খাতার সব তথ্য পূরণ করার পর নির্দিষ্ট সময়েও প্রশ্ন পাইনি। এরপর প্রায় এক ঘণ্টা চল্লিশ মিনিট পর আমাদের জানানো হয় আজকের পরীক্ষা স্থগিত। এভাবে শিক্ষার্থীদের হয়রানির কোনো মানেই হয় না।

জানতে চাইলে ঢাকা কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক এটিএম মইনুল হোসেন বলেন, আমরা এ সমস্যার কথা জেনেছি। আমাদের শিক্ষার্থী যারা ইডেন মহিলা কলেজে পরীক্ষা দিতে গিয়েছিল তাদের এমন একটি সমস্যা হয়েছে। ঢাকা কলেজ কেন্দ্রে এ কোডের পরীক্ষা ছিল না। এখানে কোনো পরীক্ষা স্থগিত হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে সাত কলেজের সমন্বয়ক (ভারপ্রাপ্ত) ও ইডেন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক সুপ্রিয়া ভট্টাচার্যকে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

কেন এমন সমস্যা হলো তা জানতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহলুল হক চৌধুরীরকে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনিও ফোন রিসিভ করেননি।

আরো পড়ুন : লভ্যাংশ ঘোষণা করলো রানার অটোমোবাইলস