শীতকালীন সবজির আশানুরূপ ফলন

শীতকালীন সবজির ভালো ফলন হয়েছে দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চন্দনাইশ ও পটিয়ায়। এবার উৎপাদন সাড়ে ছয় লাখ মেট্রিক টন ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্নিষ্টরা।

শিম, বরবটি, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, লালশাক, পুঁইশাক, পালং শাক, লাউ শাক, শসা, করলা, মুলা চাষের জন্য বিখ্যাত শঙ্খসহ বিভিন্ন নদীর চর, পটিয়ার ভাটিখাইনে শ্রীমাই নদী এলাকা, হাঈদগাঁও, কেলিশহর ও খরনা সহ পাহাড়ি এলাকা। এখানকার কৃষকরা শীতকালীন আগাম সবজি চাষ করেছেন। এসব সবজি চট্টগ্রামসহ সারাদেশে সরবরাহ করা হয়।

চট্টগ্রাম জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত বছর উপজেলা পর্যায়ে শীতকালীন সবজি উৎপাদিত হয়েছে পটিয়ায় ৭১০ হেক্টর জমিতে ১৩ হাজার ৯০৯ মেট্রিক টন, চন্দনাইশে এক হাজার ৯২০ হেক্টরে ৪৪ হাজার ৬৩৭ মেট্রিক টন, লোহাগাড়ায় এক হাজার ২৮০ হেক্টরে ২১ হাজার ৮২১ মেট্রিক টন, সাতকানিয়ায় এক হাজার ৪০০ হেক্টরে ১৫ হাজার ৯১৪ মেট্রিক টন, বোয়ালখালীতে প্রায় ৭০০ হেক্টর জমিতে ১১ হাজার ২৪০ মেট্রিক টন, আনোয়ারায় ৫০০ হেক্টরে ১১ হাজার ১৫ মেট্রিক টন, বাঁশখালীতে এক হাজার ৬৩০ হেক্টর জমিতে ৪৭ হাজার ৫৫৭ মেট্রিক টন।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের অনেক কৃষক সবজি চাষের ওপর নির্ভরশীল। ধান চাষের পাশাপাশি শীতের আগাম শাকসবজিও চাষ করেন তারা। এরই মধ্যে কিছু সবজি বাজারে এসেছে। অনেকে আছেন সবজি সংগ্রহের অপেক্ষায়।