ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে চার দফা দাবি পূরণে ৭ দিনের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য ফোরাম। বৃহস্পতিবার ডাকসু ভিপি নুরুল হক ও তার সহযোগিদের উপর হামলার বিচার এবং তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ চার দাবিতে উপাচার্য বরাবার স্মারকলিপি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

এ সময় ঢাবি প্রশাসনকে আগামী ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। এর মধ্যে দাবি আদায় না হলে বৃহৎ কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দেয় ক্যাম্পাসের ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনগুলো নিয়ে নব গঠিত সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য ফোরাম।

এদিকে স্মারকলিপি প্রদানের সময় উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান অনুপস্থিত ছিলেন। ফলে সহকারী প্রক্টর আব্দুর রহিম ও নারী প্রক্টর সিমা ইসলাম স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। এ সময় শিক্ষার্থীদের তারা বলেন, ‘আমরা তোমাদের কথা শুনলাম। তোমাদের দাবি প্রশাসনের কাছে পৌঁছে দিবো।’

চার দফা দাবির মধ্যে রয়েছে— নূরুল হকসহ সকল শিক্ষার্থীর ওপর হামলাকারীদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার ও আইনানুগ বিচার করতে হবে; শির্ক্ষাথীদের নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থতার দায়ে প্রক্টরকে অপসারণ করতে হবে; ডাকসুতে হামলায় আহতদের চিকিৎসার ব্যয়ভার প্রশাসনকে বহন করতে হবে, হামলায় আহতদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে এবং ক্যাম্পাসে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়া হলে হলে দখলদারিত্ব, গেস্টরুম-গণরুম নির্যাতন বন্ধ করতে হবে।

এর আগে রাজু ভাস্কর্য থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে চার দফা দাবি আদায়ে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেন জোটের নেতারা। কর্মসূচিতে ছাত্র পরিষদ ছাড়াও বিভিন্ন বাম ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মী এবং সাধারণ শিক্ষার্থীরা অংশ নেন বলে জানা গেছে।