ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে

ভোটগ্রহণ

ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। আজ শনিবার সকাল ৯টা থেকে এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়; একটানা চলবে বিকাল ৫টা পযন্ত।

এর আগে গতকাল শুক্রবার কেন্দ্রে কেন্দ্রে নির্বাচনী সামগ্রী পাঠানো হয়। তিনটি  দুটি আসনেই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা। ভোটগ্রহণ উপলক্ষে নির্বাচনী এলাকায় নির্দিষ্ট যানবাহন চলাচল ও সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ রয়েছে।

৩ সেপ্টেম্বর এ দুটি আসনের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যেও এ দুটি আসনে ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ইসি।

নির্বাচনী পরিবেশ ভালো রয়েছে বলে ঢাকা-৫ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা জিএম সাহাতাব উদ্দীন বলেন, নির্বাচনী সার্বিক পরিস্থিতি ভালো রয়েছে। নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ে এ মুহূর্তে কোনো অভিযোগ পাইনি। সব কেন্দ্রে নিরাপদে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পৌঁছেছে। মাঠে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য টহল দিচ্ছেন।
তিনি বলেন, ভোটকেন্দ্র ও যাতায়াতের পথে নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বাড়তি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা-৫ আসনের কয়েকটি ওয়ার্ডে সহিংসতার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে রয়েছে।

এদিকে নওগাঁ-৬ আসনে সার্বিক পরিস্থিতি ভালো রয়েছে।

নওগাঁ : আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম মারা গেলে ২৭ জুলাই নওগাঁ-৬ আসন শূন্য হয়।

তার এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের আনোয়ার হোসেন (হেলাল), বিএনপির শেখ রেজাউল ইসলাম ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির খন্দকার ইন্তেখাব আলম। রানীনগর ও আত্রাই উপজেলা নিয়ে গঠিত নওগাঁ-৬ আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬ হাজার ৭২৫ জন; যাদের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৫৩ হাজার ৭৫৮ জন ও নারী ১ লাখ ৫২ হাজার ৯৬৭ জন। ভোটকেন্দ্র ১০৪টি ও ভোটকক্ষ ৭২১টি। এ আসনে ২ জন জুডিশিয়াল ও ৩২ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

এক নজরে ঢাকা : আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা ৬ মে মারা যাওয়ায় শূন্য হয় ঢাকা-৫ সংসদীয় আসন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ১৪টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৬ জন প্রার্থী।

আরো পড়ুন- নতুন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন

তারা হলেন- আওয়ামী লীগের কাজী মনিরুল ইসলাম, বিএনপির সালাহউদ্দিন আহমেদ, জাতীয় পার্টির মীর আবদুস সবুর, গণফ্রন্টের এইচএম ইব্রাহিম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ কংগ্রেসের আনছার রহমান শিকদার ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আরিফুর রহমান। এ আসনে ১৮৭টি ভোটকেন্দ্রে ভোটকক্ষ রয়েছে ৮৬৪টি। এতে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৭১ হাজার ১২৯ জন; যাদের মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪১ হাজার ৪৬৪ জন ও নারী ২ লাখ ২৯ হাজার ৬৬৫ জন। এ নির্বাচনী এলাকায় ২ জন জুডিশিয়াল ও ২৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

 

Leave a Reply