জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালককে শোকজ

জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. মুহাম্মদ আব্দুর রহিমকে শোকজ করেছে । আজ বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ জানায় জনস্বাস্থ্যের অফিসে মোবাইল রিংটোন বন্ধ রাখা ও মুসলিম কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পোশাক নির্ধারণ করে দেয়ার প্রেক্ষিতে এ শোকজ করা হয়।

শারমিন আক্তার জাহান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে তিন কার্যদিবসের মধ্যে ডা. মুহাম্মদ আব্দুর রহিমকে কারণ দর্শাতে বলা হয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে।

এর আগে গতকাল বুধবার জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালকের স্বাক্ষর করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এতদ্বারা ইনস্টিটিউটের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, অফিস চলাকালীন সময়ে মোবাইল/ল্যান্ডফোন বন্ধ রাখা এবং মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য পুরুষ টাখনুর ওপর ও মহিলা হিজাবসহ টাখনুর নিচে কাপড় পরিধান করা আবশ্যক এবং পর্দা মানিয়া চলার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হলো।’

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘‘আপনি, পরিচালক জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ঢাকা, নিজ স্বাক্ষরে গত ২৮.১০.২০২০ খ্রি তারিখে ৯০৭ সংখ্যক পত্রে ‘অফিস চলাকালীন সময়ে বর্ণিত ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীগণের মোবাইল সাইলেন্ট/বন্ধ রাখা এবং মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য পুরুষ টাকনুর ওপরে ও মহিলা হিজাবসহ টাকনুর নিচে কাপড় পরিধান করা আবশ্যক এবং পর্দা মানিয়া চলার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো মর্মে’ একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন’’।

এতে আরো বলা হয়, ‘‘এমতাবস্থায় ‘অফিস চলাকালীন সময়ে বর্ণিত ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীগণের মোবাইল সাইলেন্ট/বন্ধ রাখা এবং মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য পুরুষ টাকনুর ওপরে ও মহিলা হিজাবসহ টাকনুর নিচে কাপড় পরিধান করা আবশ্যক এবং পর্দা মানিয়া চলার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো মর্মে’ জারিকৃত বিজ্ঞপ্তি কোন বিধি বলে এবং কোন কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে জারি করা হয়েছে তার স্পষ্টিকরণ ও ব্যাখ্যা আগামী তিন(০৩) কর্মদিবসের মধ্যে প্রেরণ করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো’’।

তবে বিষয়ে জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. মুহাম্মদ আব্দুর রহিম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমার প্রতিষ্ঠানের মুসলিম কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যেন ইসলামের নির্দেশনা মেনে চলেন, পর্দার মধ্যে থাকেন, তারা যেন কবিরা গুনাহ না করেন, সেজন্যই প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে এ বিজ্ঞপ্তটি দেয়া হয়েছে। তবে অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরা তাদের পছন্দমাফিক রুচিশীল পোশাক পরিধান করতে পারবেন।’

আরো পড়ুন- স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজির পদত্যাগ চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ সুপ্রিম কোর্টের

তিনি বলেন, আমি আমার কলিগদের এ চিঠি দিছি নিয়ম-কানুন পালন করার জন্য। আমি আমার স্টাফদের সুশৃঙ্খলভাবে চালানোর জন্য এবং রহমতের সঙ্গে চালানোর জন্য এটা দিয়েছি।

গণমাধ্যমকে আব্দুর রহিম বলেন, আমাকে সরকার থেকে কোনো দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

 

Leave a Reply