চকবাজারে ইরফান সেলিমের ‘নির্যাতন কেন্দ্র’

ইরফান

রাজধানীর চকবাজার এলাকায় সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের একটি বহুতল ভবনের ছাদে তার ছেলে ইরফান সেলিম একটি কক্ষকে ‘নির্যাতন কেন্দ্র’ হিসেবে ব্যবহার করত বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম সোমবার রাতে গণমাধ্যমকে জানান চকবাজারের আশিক টাওয়ারে ইরফানের ‘নির্যাতন কেন্দ্র’ পাওয়া গেছে।

সারওয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, ইরফানের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ১৬তলা ওই ভবনের ছাদের একটি কক্ষে অভিযান চালানো হয়। সেখানে হাতকড়া, ছোরা, মোটা দড়ি, গামছা, হকিস্টিক, ইলেকট্রিক শক দেওয়ার তারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম এবং ইয়াবা সেবনের সরঞ্জাম পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, এখানে বিভিন্নজনকে এনে নির্যাতন করতেন ইরফান।

১৬তলা আশিক টাওয়ারের ছাদের একপাশে বড় একটি কক্ষ থেকে নির্যাতনের বিভিন্ন অস্ত্র-সরঞ্জাম জব্দ করে র‌্যাব। ইরফান সেলিম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর।

রোববার রাতে ধানমণ্ডিতে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে ‘মারধরের’ মামলায় ইরফান সেলিম, তার দেহরক্ষী জাহিদুল ইসলাম ও গাড়িচালক মীজানুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এরপর সোমবার দুপুরে সোয়ারি ঘাটের দেবী দাস লেনে হাজী সেলিমের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব।

নয়তলা ওই ভবনের তৃতীয় ও চতুর্থ তলা মিলিয়ে থাকতেন ইরফান চৌধুরী। সেখানে লাইসেন্সহীন দুটি বিদেশি পিস্তল, এক রাউন্ড গুলি, একটি এয়ারগান, ৩৭টি ওয়াকিটকি, একটি হাতকড়া এবং বিদেশি মদ ও বিয়ার পাওয়া গেছে বলে জানায় র‌্যাব।

আরো পড়ুন- হাজী সেলিমের ছেলে ‘গ্রেপ্তার’

ওই বাসা থেকে ইরফান ও তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদকে গ্রেপ্তার করে মদ্যপান ও ওয়াকিটকি ব্যবহারের জন্য এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযান শেষে রাত ৮টা ১০ মিনিটের দিকে ওই বাড়ি থেকে ইরফান ও জাহিদকে বের করে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানায় র‌্যাব।

 

Leave a Reply