করোনা শনাক্তে কার্যকর নয় গণস্বাস্থ্যের কিট : বিএসএমএমইউ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

করোনাভাইরাস শনাক্তে কার্যকর নয় গণস্বাস্থ্যের কিট এমনটা জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।

বুধবার দুপুরে বিএসএমএমইউয়ের মিল্টন হলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিট কার্যকর নয় বলে তথ্য জানান।

উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, করোনা উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের রোগ শনাক্তকরণে  কার্যকর নয় গণস্বাস্থ্যের কিট । উপসর্গের প্রথম দুই সপ্তাহে এই কিট ব্যবহার করে শুধু ১১ থেকে ৪০ শতাংশ রোগীর করোনা শনাক্তকরণ সম্ভব হয়েছে।

এর আগে সকালে গণস্বাস্থ্যের উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষায় অধ্যাপক শাহিনা তাবাসসুমের নেতৃত্বে গঠিত পারফরম্যান্স কমিটি তাদের প্রতিবেদন দাখিল করে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর জানিয়েছিলো, বিএসএমএমইউর পারফরম্যান্স কমিটির কাছে  ইতিবাচক প্রতিবেদন এলেই তিনি দ্রুত নিবন্ধনের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেবেন তারা। প্রচলিত আইনে প্রাপ্ত ফলাফল ঔষধ প্রশাসনের কারিগরি কমিটিতে পাঠানোর নিয়ম আছে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে তিনি সন্তুষ্ট হলে তাঁর বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন। বিএসএমএমইউ থেকে সন্তোষজনক ফল পাওয়ামাত্রই তিনি একক সিদ্ধান্তে নিবন্ধন করে দেবেন বলে জানিয়েছিলেন। আর কোনো কমিটিতে পাঠাবেন না।

গেলো ৩০ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে বিএসএমএমইউতে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য অনুমতি দেয় ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর। তারা কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য বিএসএমএমইউকে চিঠি দেয়। গত ২ মে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা করতে ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করে। পরে বিএসএমএমইউতে কিট জমা দেয় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

আরো পড়ুন- হাসপাতাল থেকে নাসিমের জানাজায় জাফরুল্লাহ

1 মন্তব্য

Leave a Reply