কম্বোডিয়ার বিরোধী ৭ নেতাকর্মীকে কারাদণ্ড

কম্বোডিয়ার বিরোধী নেতাকর্মীকে কারাদণ্ড
নির্বাসিত এক বিরোধী নেতার সমর্থনে একটি অনলাইন পোস্টের মন্তব্যে রাষ্ট্রদ্রোহের দায়ে কম্বোডিয়ার বিরোধী ৭ নেতাকর্মীকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

কারাদণ্ড এড়াতে ২০১৫ সাল থেকে ফ্রান্সে বসবাস করে আসছেন স্যাম রেইনসি নামে  একজন। তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এবার তিনি কম্বোডিয়ায় ফিরে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। নভেম্বরে তিনি দেশে ফিরতে চেষ্টা করলে প্রধানমন্ত্রী হুন সেন তা ব্যাহত করে দেন। পরে অভ্যুত্থানের অভিযোগ তুলে প্রতিবেশী দেশগুলোতে স্যামের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা পাঠিয়ে দেন।

আইনজীবী স্যাম সোকং বৃহস্পতিবার জানান, গত বছর রেইনসির প্রত্যাবর্তনের সমর্থনে বার্তা পোস্ট করার অভিযোগে অভিযুক্ত বিরোধীদলীয় কর্মীদের এ সপ্তাহে পূর্ব টাবুং খমুম প্রদেশে ‘রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে’ শাস্তি প্রদান করা হয়।

আত্মগোপনে থাকা চারজনের অনুপস্থিতিতে পরোয়ানাসহ সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। অন্য এক কর্মীকেও একই সাজা দেয়া হয়। তিনি ইতোমধ্যে কারাগারে রয়েছেন। সোকং বলেন, তিনি এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

স্থানীয় মানবাধিকার সংগঠন লিকাধোর উপপরিচালক এম স্যাম অ্যাথ পরিস্থিতি ‘উদ্বেগজনক’ বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, আমরা দেখতে পাচ্ছি রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ হয়ে উঠছে।

এই মাসের শুরুতে জাতিসংঘের মানবাধিকার দফতর বলেছে, ভিন্নমত এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতার অধিকার দমনের প্রতি সরকারের অসহিষ্ণুতা আরও গভীর হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযুক্ত অন্য দুজন বিরোধী কর্মীকে পাঁচ বছরের জন্য বরখাস্তের সাজা দেয়া হয়েছে এবং তাদের কারা ভোগ করতে হবে না বলে তাদের আইনজীবী জানান।

আরো পড়ুন- পানি বিক্রি করেই চীনের শীর্ষ ধনী

১৯৮৫ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা হুন সেন বিশ্বের দীর্ঘকাল ধরে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত নেতাদের অন্যতম।

 

Leave a Reply