২০২২ সালে তুরস্কে ৩ লাখ কম্প্রেসর রপ্তানি করবে বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক্স ও প্রযুক্তিপণ্য জায়ান্ট ওয়ালটন। এজন্য দেশটির অন্যতম শীর্ষ প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন ও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান কার্গি সগুতমা ইসিতমা স্যান. ভি টিক. লিমিটেড এসটিআই-এর সাথে চুক্তি করেছে ওয়ালটন। ইতোমধ্যেই কার্গির মাধ্যমে তুরস্কে ২ লাখ ওয়ালটন কম্প্রেসর রপ্তানি হয়েছে। সব মিলিয়ে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশটিতে ১ মিলিয়ন বা ১০ লাখ কম্প্রেসর রপ্তানির টার্গেট নিয়েছে ওয়ালটন।

বৃহস্পতিবার তুরস্কের বৃহত্তম শহর ও প্রধান সমুদ্রবন্দর ইস্তাম্বুলের আইএসকে সোডেক্স আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ওয়ালটন ও কার্গির মধ্যে চুক্তিটি সই হয়। ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ ওই আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলাটি চলে। মেলায় প্রথমবারের মতো অংশ নেয় ওয়ালটন। এতে বাংলাদেশে তৈরি ওয়ালটন পণ্যের প্রতি বৈশ্বিক ক্রেতাদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া মেলে। সৌদি আরব, গ্রিস, ইরাক, ইরান, লেবানন ইত্যাদি দেশের ব্যবসায়ীরা ওয়ালটন কম্প্রেসরসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানির ব্যাপারে আগ্রহ দেখান।

ওয়ালটনের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিটের (আইবিইউ) প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম এবং কার্গি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমিন কার্গি নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটনের পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম, জ্যেষ্ঠ নির্বাহী পরিচালক তানভীর রহমান ও মাহফুজুর রহমান, কম্প্রেসর প্রোডাক্টের ডেপুটি চিফ বিজনেস অফিসার নাসির উদ্দিন মন্ডল প্রমুখ।

আইএসকে সোডেক্স ফেয়ার ইউরোশিয়া অঞ্চলে ভেন্টিলেশন, রেফ্রিজারেশন ও এয়ার কন্ডিশনিং প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী। আন্তর্জাতিক এ বাণিজ্য মেলার কেন্দ্রে স্থাপন করা হয় ওয়ালটন ও কার্গির দৃষ্টিনন্দন স্টল। বৈশ্বিক ক্রেতাদের কাছে বিশ্বের ‘মোস্ট সাইলেন্ট অ্যান্ড ডিউরেবল’ ওয়ালটন কম্প্রেসরসহ বিভিন্ন পণ্য উপস্থাপন করে প্রতিষ্ঠানটি। বাংলাদেশে তৈরি ওয়ালটন পণ্যের উচ্চমানে সন্তুষ্ট হন বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়িক প্রতিনিধিরা।

ওয়ালটনের পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম জানান, মেলায় বৈশ্বিক ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণে সক্ষম হয় ওয়ালটন। সৌদি আরব, গ্রিস, ইরাক, ইরান, লেবানন ইত্যাদি দেশের ব্যবসায়ীরা ওয়ালটন প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তারা কম্প্রেসরসহ বাংলাদেশে তৈরি বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স ও প্রযুক্তিপণ্য আমদানিতে ব্যাপক আগ্রহ দেখিয়েছেন।