ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ বিজনেস এগ্রিকালচার এন্ড টেকনোলজি’র ডিবেটিং ক্লাব ‘ডিবেটিং ফোরাম অব আইইউবিএটি‘ কর্তৃক আয়োজিত ন্যাশনাল পাবলিক স্পিকিং প্রতিযোগিতার ইংরেজি সেগমেন্টের গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত  হয়েছে। শুক্রবার, ৪ জুন,  রাত ৯ টায় এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইংরেজি সেগমেন্টের গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও  ডিএফআই এর অফিশিয়াল  ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এ  অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করা হয়।

প্রতিযোগিতায় অসাধারণ বক্তব্যের জন্য চ্যাম্পিয়ন খেতাব অর্জন করে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের রাইক জামান। মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল এন্ড কলেজ এর ফাবলিহা জুবায়দা আলম হন প্রথম রানারআপ এবং ব্রাক ইউনিভার্সিটির  মোহাইমিনুল সোলায়মান নিকোলাস হন দ্বিতীয় রানারআপ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আব্দুর রব প্রধান অতিথি হিসেবে বলেন ডিএফআই কর্তৃক আয়োজিত এ ধরনের প্রতিযোগিতা সত্যিই প্রশংসার দাবীদার। বর্তমান সময়ে এই তরুন প্রজন্মের কন্ঠস্বরই আমাদের নতুন যুগের  সূচনা ঘটাবে বলে আমি মনে করি। তিনি আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন  এবং ভবিষ্যতেও এমন অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য আহ্বান করেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সেলিনা নার্গিস এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ এর সহযোগী  অধ্যাপক ড. বিজয় লাল বসু। অনুষ্ঠানে আরো উপ্সছিত ছিলেন   রেজিস্ট্রার মোঃ লুতফর রহমান , ডিপার্ট্মেন্ট অফ ইংলিশ অ্যান্ড মডার্ন ল্যাংগুয়েজ এর চেয়ার , অধ্যাপক ড. মমতাজুর রহমান, কো-অর্ডিনেটর,সহকারী অধ্যাপক আবু তাহের মোহাম্মদ সিরাজুল আলম এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগের উপ পরিচালক মোঃ আল আমীন শিকদার শিহাব।

মো ফরহাদ হোসাইন, সহযোগী অধ্যাপক, ইংলিশ ডিপার্টমেন্ট, আইইউবিএটি ; লুলু আল মারজান, সহযোগী অধ্যাপক, ইংলিশ ডিপার্টমেন্ট, আইইউবিএটি; জান্নাতুল ফেরদৌস, শিক্ষক, ব্রাক ইউনিভার্সিটি; রাইসুল  ইসলাম রাতুল, সাবেক সভাপতি, ডিবেটিং ফোরাম অব আইইউবিএটি বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন।সঞ্চালনায় ছিলেন ডিবেটিং ফোরাম অব আইইউবিএটি এর সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি কাজী শিমুল।

অনুষ্ঠানে সমাপনি বক্তব্য রাখেন ডিবেটিং ফোরাম অব আইইউবিএটি এর কো-অর্ডিনেটর এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল প্রোগ্রামের ডেপুটি ডিরেক্টর সাদেকুল ইসলাম।

আরও পড়ুনঃ- ৮ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছে অ’বৈধ ভবনে

প্রতিযোগিতায়  ৫৫ টিরও অধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ১৫০ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন।