দেশ সমাচার

অসুস্থতা সারিয়ে তুলতে সবচেয়ে বেশি সহায়ক সঠিক খাবার। এসব খাবার আমাদের শরীরে শক্তি সরবরাহ করে রোগ থেকে মুক্তি দিতে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

১. চিকেন স্যুপ
শরীরের অসুস্থতা থেকে পুনরুদ্ধারের সময় আপনার শরীরে অনেক বেশি পরিমাণে পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে।এ ছাড়া চিকেন স্যুপ তরল এবং ইলেক্ট্রোলাইটের একটি সমৃদ্ধ উৎস যা ডায়রিয়া, বমিভাব, ঘাম বা জ্বরের কারণে ডিহাইড্রেশনের ঝুঁকিতে থাকলে তা নিরাময়ে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

২. তরকারির পাতলা ঝোল ও নেহারি
বিভিন্ন মাংসের তরকারির পাতলা ঝোল ও নেহারি খেলে তা আপনার অসুস্থতা সারিয়ে তুলতে অনেক উপকারী।  অসুস্থতা সারিয়ে উঠার পর বিশেষ করে মুরগি, কবুতর, কোয়েল ইত্যাদি পাতলা ঝোল করে রান্না ইলেক্ট্রোলাইটের চমৎকার উৎস এবং এগুলো আপনার অসুস্থতা নিরাময়ে সহায়ক হতে পারে। প্রাণীর হাড় থেকে কোলাজেন এবং অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে বলে তা দ্রুতই রোগ পুনরুদ্ধারে সহায়তা করতে পারে।

৩. রসুন
রসুনের অনেক উপকারী ঔষধি উপকারিতা রয়েছে। বিভিন্ন টেস্টটিউব এবং প্রাণী গবেষণায় দেখা গেছে যে, রসুনে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল ও অ্যান্টিফাঙ্গাল প্রভাব রয়েছে। এ ছাড়া রসুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে এবং সর্দিজ্বরের সমস্যা কমাতে অনেক উপকারী।

৪. ডাবের পানি
এটি ইলেক্ট্রোলাইট সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে তা বমি, ঘাম, ডায়রিয়া ও জ্বরের সময় শরীরে তরল সরবরাহ করে সেরে উঠতে উপকার করে। এ ছাড়া এতে কিছুটা প্রাকৃতিক চিনি থাকে, যা আপনার শরীরের জন্য দ্রুত এবং সহজেই ব্যবহারযোগ্য শক্তির উৎস প্রদান করতে পারে।

৫. মধু
মধুর জীবাণুনাশক বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং এটি ইমিউনিটি সিস্টেমকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। এ কারণে মৌসুমি অ্যালার্জি, জ্বর-ঠাণ্ডা-কাশির সমস্যা কমাতে সহায়ক হতে পারে।

৬. আদা
ভেষজ ঔষধি গুণাগুণ থাকার কারণে তা ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে অনেক পরিচিত। আদার গুণাগুণ আপনার অসুস্থতা সারিয়ে তুলতে অনেক উপকারী হিসেবে কাজ করে। তাই আমরা জন্য আপনি রান্নায় ও চায়ের সঙ্গে কাঁচাআদা খেতে পারেন। এমনকি আপনি কাঁচাআদা খালি মুখে নিয়ে থাকলেও তা আপনার বমিভাব ও বমি হওয়ার পর খারাপ লাগা থেকে মুক্তি দিতে সহায়তা করবে।

আরো পড়ুন : রক্তচাপ ও ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় বাঁধাকপি