সাবেক এটর্নি জেনারেল ও অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি মাহবুবে আলমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা করেছে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন।

গত ১ অক্টোবর, শুক্রবার সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের আব্দুল জব্বার খান মুক্ত মঞ্চে স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. আব্দুল মালেক ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর হাসানের সঞ্চালনায় স্মরণ সভায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বিক্রমপুরের ইতিহাস লেখক মাহবুবুল আলম দিদার, মাহবুবে আলমের সহধর্মিণী বিনতা মাহবুব, বন কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন, অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের লৌহজং কেন্দ্রের সভাপতি কবির ভূঁইয়া কেনেডি, কেন্দ্রীয় পর্ষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের পাঠাগার ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক আলম শহীদ, দপ্তর ও পরিসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন আহমেদ জুয়েল, মেজর (অব.) মাসুদ, ইসলাম শেখ ও অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের মুন্সীগঞ্জ কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক আবু হানিফ।অনুষ্ঠানে মাহবুবে আলমের বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের উপর আলোচনা করেন বক্তারা। রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা হয়েও অত্যন্ত মানবিকতার সাথে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং প্রশাসনিক সমস্যা সমাধান করার যে মননশীলতা তার মধ্যে ছিল তা বিরল। মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পাঠাগার উন্নয়নে তার অবদান স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে বলে উল্লেখ করেন বক্তারা।

মাহবুবে আলমের সহধর্মীনি বিনতা মাহবুব আলোচনায় অংশগ্রহণ করে বলেন সারা জীবন তিনি দেশ ও দেশের মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। শত ব্যস্ততার মাঝেও তিনি কোনদিন নিজ এলাকার মানুষের কথা ভুলে যাননি। তার পরিবারের পক্ষ থেকে তার জন্য দোয়া প্রার্থনা করা হয়। এটর্নি জেনারেল থাকা অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিএমএইচ এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বছর ২৭ সেপ্টেম্বর ৭১ বছর বয়সে তিনি মৃত্যু বরণ করেন।